বাংলাদেশের সাথে মুক্ত বাণিজ্য চুক্তির (এফটিএ) প্রস্তাব যুক্তরাষ্ট্রের - Southeast Asia Journal

বাংলাদেশের সাথে মুক্ত বাণিজ্য চুক্তির (এফটিএ) প্রস্তাব যুক্তরাষ্ট্রের

“এখান থেকে শেয়ার করতে পারেন”

Loading

নিউজ ডেস্ক

করোনা পরবর্তী অর্থনীতি পুনরুদ্ধারে বাংলাদেশকে মুক্ত বাণিজ্য চুক্তি বা ফ্রি ট্রেড এগ্রিমেন্টের (এফটিএ) প্রস্তাব দিয়েছে যুক্তরাষ্ট্র। মার্কিন উপপররাষ্ট্রমন্ত্রী স্টিফেন বাইগানের ঢাকা সফরের প্রথম দিনে গত ১৫ অক্টোবর বিকেলে পররাষ্ট্র প্রতিমন্ত্রী মো. শাহরিয়ার আলমের সঙ্গে বৈঠকে গতকাল যুক্তরাষ্ট্রের পক্ষ থেকে এ প্রস্তাব আসে।

মার্কিন উপপররাষ্ট্রমন্ত্রী স্টিফেন বাইগানের সঙ্গে প্রথম অংশের বৈঠক শেষে পররাষ্ট্র প্রতিমন্ত্রী মো. শাহরিয়ার আলম বলেন, কোভিড-পরবর্তী অর্থনৈতিক পুনরুদ্ধারে যুক্তরাষ্ট্র একটি ‘বেল্ট অ্যাক্ট’ প্রণয়ন করেছে। এর আওতায় বেশকিছু দেশকে অগ্রাধিকারমূলক বাণিজ্য সুবিধা দিয়েছে। সেটি দ্বিপক্ষীয় সম্পর্ক ও বাণিজ্যের আকারের ওপর নির্ভর করে দেয়া হয়েছে। ঢাকার পক্ষ থেকে বলা হয়েছে, বাংলাদেশ যদিও ভালো করছে, তবে বাংলাদেশকে এটির সঙ্গে যুক্ত করলে কোভিড-পরবর্তী অথনৈতিক পুনরুদ্ধার আরো দ্রুত হতে পারে। যুক্তরাষ্ট্র জানিয়েছে, বাংলাদেশের বাণিজ্যের আকার ‘বেল্ট অ্যাক্ট’-এর আওতায় থাকা দেশগুলোর চেয়ে অনেক বড়। সেক্ষেত্রে যুক্তরাষ্ট্র বাংলাদেশের সঙ্গে আরো বড় আকারে আলোচনায় বসতে পারে। এ সময় দুই দেশের মধ্যে মুক্ত বাণিজ্য চুক্তির বিষয়ে আলোচনার বিষয়ে মার্কিন উপপররাষ্ট্রমন্ত্রী উৎসাহিত করেছেন।

তিনি বলেন, বৈঠকে বাংলাদেশের গ্যাসক্ষেত্রে মার্কিন প্রতিষ্ঠানগুলোকে আমন্ত্রণ জানানো হয়েছে। মার্কিন একটি প্রতিষ্ঠান এলএনজি সরবরাহ করার বিষয়টি বৈঠকে উল্লেখ করেছেন উপপররাষ্ট্রমন্ত্রী। আগামী দিনে আরো প্রতিষ্ঠান যাতে আগ্রহ দেখায়, সে বিষয়ে তিনি ভূমিকা রাখবেন বলে আশ্বাস দিয়েছেন। এছাড়া বৈঠকে রোহিঙ্গা ইস্যু নিয়ে আলোচনা হয়েছে। সেখানে বাংলাদেশ রোহিঙ্গাদের দীর্ঘমেয়াদি পুনর্বাসনের পরিবর্তে দ্রুত প্রত্যাবাসনের বিষয়ে বলেছে। মো. শাহরিয়ার আলম বলেন, কোভিড চলাকালে যুক্তরাষ্ট্রকে পিপিই রফতানি করে বাণিজ্যিক সহায়তার জন্য স্টিফেন বাইগান সাধুবাদ জানিয়েছেন। কোভিড-১৯-এর ভ্যাকসিনের যুক্তরাষ্ট্রে যে ট্রায়াল হচ্ছে, তার বর্তমান অবস্থা তিনি জানিয়েছেন। এক্ষেত্রে ভ্যাকসিনে যুক্তরাষ্ট্র সফল হলে বাংলাদেশের বেসরকারি খাত যাতে তা পায়, সে বিষয়েও মার্কিন পররাষ্ট্র দপ্তর সহযোগিতা করবে।

উল্লেখ্য, মার্কিন স্টেট ডিপার্টমেন্টের ঘোষণা অনুযায়ী দুই দিনের সফরে ঢাকা এসেছেন মার্কিন উপপররাষ্ট্রমন্ত্রী স্টিফেন বাইগান। ডেপুটি সেক্রেটারি অব স্টেট বাইগান গতকাল বিকালে বিশেষ ফ্লাইটে ঢাকা পৌঁছেছেন। তিনি দিল্লি হয়ে ঢাকা আসেন। ওয়াশিংটনের উদ্দেশে ঢাকা ছেড়ে যাবেন আগামীকাল সকালে। মূলত আজ সারা দিন ঢাকায় ব্যস্ত সময় কাটাবেন তিনি। ১৫ অক্টোবর দুপুর ১২টায় প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা ও তার আগে সকালে পররাষ্ট্রমন্ত্রী ড. এ কে আবদুল মোমেনের সঙ্গে সাক্ষাৎ করবেন তিনি। এর আগে সকালে জাতির জনক বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের ধানমন্ডির ৩২ নম্বরে জাদুঘর পরিদর্শন করবেন। আর দুপুরে ঢাকার একটি হাসপাতাল পরিদর্শন করবেন তিনি। পাশাপাশি রাজনৈতিক নেতৃত্ব, গণমাধ্যম, ব্যবসায়ী ও সুশীল সমাজের প্রতিনিধিদের সঙ্গে দেখা করবেন উপপররাষ্ট্রমন্ত্রী স্টিফেন বাইগান। গতকাল সন্ধ্যায় তিনি পররাষ্ট্র প্রতিমন্ত্রী এম শাহরিয়ার আলমের সঙ্গে আনুষ্ঠানিক নৈশভোজ বৈঠকে দ্বিপক্ষীয় আলোচনা করেন।