‘মোট ভোটারের চাইতে বেশী ভোট’ অপপ্রচার খাগড়াছড়ি জেলা পরিষদ কর্মকর্তার - Southeast Asia Journal

‘মোট ভোটারের চাইতে বেশী ভোট’ অপপ্রচার খাগড়াছড়ি জেলা পরিষদ কর্মকর্তার

“এখান থেকে শেয়ার করতে পারেন”

Loading

নিউজ ডেস্ক

গত ৭ জানুয়ারি অনুষ্ঠিত দ্বাদশ জাতীয় সংসদ নির্বাচনে খাগড়াছড়ি পার্বত্য জেলার দীঘিনালা উপজেলার একটি কেন্দ্রে মোট ভোটারের চাইতে বেশী ভোট পড়েছে মর্মে ভুয়া ফলাফলের বিবরনী দিয়ে তৈরী একটি ব্যানার ছড়িয়ে পড়েছে সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে। বিষয়টি নিয়ে সরগরম খাগড়াছড়ির রাজনীতির মাঠ। ইতিমধ্যেই একটি পক্ষ বিষয়টি লাইক, কমেন্টে ও শেয়ার করে ছড়িয়ে দিচ্ছেন সবর্ত্র। কারসাজি করে বানানো ফলাফলের চিত্রে (রেজাল্ট শিট) দেখা যায়, ওই কেন্দ্রে ভোটারের চেয়ে ভোট বেশি। তবে খাগড়াছড়ির রিটার্নিং কর্মকর্তা ও জেলা প্রশাসক মো. সহিদুজ্জামান আসল ফলাফলের চিত্র প্রকাশ করে বলেছেন, বিষয়টি সাজানো।

আর এবার ওই অপপ্রচারকৃত ব্যানারটি নিজ ফেসবুক ওয়ালে শেয়ার করে নানা প্রশ্নের জন্ম দিয়েছেন খাগড়াছড়ি পার্বত্য জেলা পরিষদের এক কর্মকর্তা।

সামাজিক যোগাযোগমাধ্যমে প্রাপ্ত ফলাফলের ওই বিবরণীতে দেখা যায় ২৯৮ নং সংসদীয় খাগড়াছড়ি আসনের দীঘিনালা উপজেলার ছোট মেরুং বাজার সরকারী প্রাথমিক বিদ্যালয় কেন্দ্রে ভোটার সংখ্যা ১ হাজার ৭৮৪। তবে ভোট পড়েছে ২ হাজার ৪৩৪টি। তার মধ্যে নৌকায় ভোট পড়েছে ২ হাজার ২৯৫টি। আর সোনালী আঁশ প্রতীকে ২৪টি, লাঙ্গল প্রতীকে ৭৯টি, আম প্রতীকে ৩৬টি।

অন্যদিকে, জেলা রিটার্নিং কর্মকর্তা থেকে প্রাপ্ত ভোটার বিবরণীতে দেখা যায়, ছোট মেরুং উচ্চবিদ্যালয় কেন্দ্রে ভোটার সংখ্যা ৩ হাজার ৭৯৫। এখানে ভোট পড়েছে ২ হাজার ৪৩৪টি। আর ছোট মেরুং সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয় কেন্দ্রে ভোটার ১ হাজার ৭৮৪ জন। এখানে ভোট পড়েছে ৮৬৪টি।

জানা যায়, ৭ জানুয়ারি রবিবার রাত ১০টা ৫৩ মিনিটে ‘ভয়েস অব ইসলাম’ (Voice Of Islam) নামক একটি ফেসবুক পেজ থেকে ‘মোট ভোটারের চাইতে বেশী ভোট’ সম্বলিত একটি ব্যানারে ছোট মেরুং বাজার সরকারী প্রাথমিক বিদ্যালয় কেন্দ্রের ভোট গনণার একটি বিবরনী শেয়ার করা হয়। ইতিমধ্যে ওই পোষ্টটিতে প্রায় ৭০ হাজার সামাজিক যোগাযোগমাধ্যম ব্যবহারকারী লাইক, প্রায় সাড়ে তিন হাজার কমেন্ট ও ১৬ হাজারের বেশী শেয়ার করেছেন। েএর থেক বাদ যান নি খাগড়াছড়ি পার্বত্য জেলা পরিষদের হিসাবরক্ষক ম্রাসাথোয়াই মারমাও। তিনি গতকাল মঙ্গলবার নিজ ওয়ালে ভয়েস অব ইসলাম পেজের ওই ব্যানারটি শেয়ার করেছেন। যা ইতিমধ্যে খাগড়াছড়ির নেটিজেনদের মঝে ব্যাপক প্রতিক্রিয়ার সৃষ্টি করেছে। পরবর্তীতে বিষয়টি স্থানীয় সাংবাদিকদের নজরে আসলে পোষ্ট করার ১৫ ঘন্টা পর তিনি তার ওয়াল থেকে পোষ্টটি সরিয়ে নেন।

এবিষয়ে জানতে চাইলে জেলা পরিষদের হিসাব রক্ষক ম্রাসাথোয়াই মারমার মুঠোফোনে একাধিকবার কল করেও তাকে পাওয়া যায় নি।

জেলা পরিষদের প্রশাসনিক কর্মকর্তা মোহাম্মদ সাইফুল্ল্যাহ এ বিষয়ে কিছুই জানে না বলে জানান। তবে জেলা পরিষদের নির্বাহী কর্মকর্তা টিটন খীসা বিষয়টি নিয়ে যাচাই করে জেলা পরিষদের চেয়ারম্যানের নজরে আনা ও প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা নেয়ার আশ্বাস দিয়েছেন।

এ ব্যাপারে জানতে চাইলে জেলা রিটার্নিং কর্মকর্তা ও জেলা প্রশাসক মো. সহিদুজ্জামান সাংবদিকদের বলেন, দীঘিনালা উপজেলায় একটা কেন্দ্রের একটা ভুয়া ফলাফলের চিত্র সামাজিক যোগাযোগমাধ্যমে ছড়ানো হয়েছে। মূলত এক কেন্দ্রের ভোটার সংখ্যা আরেক কেন্দ্রের ফলাফলে বসানো হয়েছে। ছোট মেরুং উচ্চবিদ্যালয় কেন্দ্রের ভোটার বিবরণী সংখ্যার জায়গায় ছোট মেরুং সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়ের ভোটার সংখ্যা বসানো হয়েছে। এটি জনগণকে বিভ্রান্ত করার জন্য কেউ ছড়িয়েছে।