‘যেকোনও মুহূর্তে মিয়ানমারে ফিরতে প্রস্তুত’- ইইউ দলকে রোহিঙ্গারা - Southeast Asia Journal

‘যেকোনও মুহূর্তে মিয়ানমারে ফিরতে প্রস্তুত’- ইইউ দলকে রোহিঙ্গারা

“এখান থেকে শেয়ার করতে পারেন”

Loading

নিউজ ডেস্ক

রোহিঙ্গা প্রত্যাবাসন ও মানবিক প্রয়োজনে ইউরোপীয় ইউনিয়ন (ইইউ) সমসময় পাশে আছে বলে আশ্বস্ত করেছেন ইইউ’র মানবাধিকার বিষয়ক বিশেষ প্রতিনিধি ইমোন গিলমোর।

বৃহস্পতিবার (২৭ জুলাই) কক্সবাজারের উখিয়ার ক্যাম্পে রোহিঙ্গাদের সঙ্গে ইইউ’র পাঁচ সদস্যের প্রতিনিধি দলের মতবিনিময়কালে তিনি এ আশ্বাস দেন।

মতবিনিময়ে অংশ নেওয়া রোহিঙ্গারা বলেন, ইইউ প্রতিনিধি আমাদের কথা শুনেছেন। আমরা বলেছি, যেকোনও মুহূর্তে নিজ দেশে ফিরতে প্রস্তুত রয়েছি। আমাদের অধিকারসহ স্বদেশে প্রত্যাবাসনে বিশ্ববাসীকে সহায়তা করতে হবে। এর পরিপ্রেক্ষিতে গিলমোর আমাদের আশ্বস্ত করেছেন প্রত্যাবাসনসহ রোহিঙ্গাদের মানবিক প্রয়োজনে ইউরোপীয় ইউনিয়ন সবসময় পাশে আছে।

জানা গেছে, বৃহস্পতিবার দিনব্যাপী উখিয়ার রোহিঙ্গা ক্যাম্প পরিদর্শন করেন প্রতিনিধি দলের পাঁচ জন। সকালে ঢাকা থেকে কক্সবাজার বিমানবন্দরের পৌঁছার পর সরাসরি রোহিঙ্গা ক্যাম্পে প্রবেশ করেন। ইমোন গিলমোরের নেতৃত্বে ইইউ প্রতিনিধি দলটির গাড়ি বহর উখিয়ার কুতুপালং ৪নং রোহিঙ্গা ক্যাম্পে পৌঁছায়।

ওই ক্যাম্পে ইউএনএইচসিআর পরিচালিত রোহিঙ্গাদের রেজিস্ট্রেশন কার্যক্রম, ইউনিসেফ পরিচালিত রোহিঙ্গা শিশুদের শিক্ষা কার্যক্রম, জাতিসংঘের বিশ্ব খাদ্য কর্মসূচি পরিচালিত ই-ভাউচার সেন্টার পরিদর্শন করে। তারা ইউএনএইচসিআরের কমিউনিটি সেন্টারে রোহিঙ্গা জনগোষ্ঠীর প্রতিনিধিদের সঙ্গে মানবাধিকার পরিস্থিতিসহ বিভিন্ন বিষয়ে মতবিনিময় করেন।

মতবিনিময়ে অংশ নেওয়া উখিয়ার ৪নং ক্যাম্পের-এ-৬ ব্লকের বাসিন্দা রোহিঙ্গা আলী আকবর রোহিঙ্গা ক্যাম্পে খাদ্য সহায়তা কমিয়ে দেওয়ার বিষয়টি গিলমোরকে জানালেন। বিপরীতে সহায়তা বাড়ানোর আশ্বাস দিয়েছেন তিনি।

একই ক্যাম্পের বাসিন্দা মরিয়ম বেগম বলেন, ‘ইইউ প্রতিনিধি আমাদের কথা শুনেছেন। আমরা বলেছি, যেকোনও মুহূর্তে নিজ দেশে ফিরতে প্রস্তুত রয়েছি।’

আশরাফুজ্জামান নামের আরেক রোহিঙ্গা বলেন, ‘গিলমোর আমাদের আশ্বস্ত করেছেন প্রত্যাবাসনসহ রোহিঙ্গাদের মানবিক প্রয়োজনে ইউরোপীয় ইউনিয়ন সবসময় পাশে আছে।’

ইইউ’র প্রতিনিধি দল সবশেষে, আন্তর্জাতিক অভিবাসন সংস্থা আইওএম পরিচালিত রোহিঙ্গাদের কালচারাল সেন্টার পরিদর্শনের পর দুপুরে কক্সবাজার শহরের উদ্দেশে রওনা দেয়। বিকালে ইমন গিলমোর শরণার্থী ত্রাণ ও প্রত্যাবাসন কার্যালয়ে সরকারের ঊর্ধ্বতন কর্মকর্তাদের সঙ্গে মতবিনিময় অংশ নেওয়ার কথা রয়েছে। রাতে অনুষ্ঠিত হবে কক্সবাজারে অবস্থানরত জাতিসংঘসহ বিভিন্ন আন্তর্জাতিক সংস্থার কর্মকর্তাদের সঙ্গে বৈঠক।