পাহাড়ের সেনা অভিযানে দুই কেএনএফ সন্ত্রাসী নিহত, আটক ২

পাহাড়ের সেনা অভিযানে দুই কেএনএফ সন্ত্রাসী নিহত, আটক ২

পাহাড়ের সেনা অভিযানে দুিই কেএনএফ সন্ত্রাসী নিহত, আটক ২
“এখান থেকে শেয়ার করতে পারেন”

Loading

নিউজ ডেস্ক

কেএনএফ ইস্যুতে উত্তাল পার্বত্য জেলা বান্দরবানে সেনাবাহিনীর সাথে কুকিচিন ন্যাশনাল ফ্রন্ট- কেএনএফ’র মধ্যে সংঘর্ষে কেএনএফের দুই সশস্ত্র সন্ত্রাসী নিহত ও দুজনকে আটক হয়েছে।

আজ রবিবার ভোরে রুমা উপজেলার দুর্গম রেমাক্রির প্রাংসা ইউনিয়নের বাকলাই এলাকায় এ ঘটনা ঘটে।

আইএসপিআর আরও জানায়, অভিযানে তিনটি আগ্নেয়াস্ত্র, বিপুল পরিমাণ গোলাবারুদ, ওয়াকিটকি ও অন্যান্য সরঞ্জাম উদ্ধার হয়েছে।

বর্তমানে ওই এলাকায় থমথমে অবস্থা বিরাট করছে। অভ্যন্তরীণ সড়কগুলোতে যানবাহন চলাচল বন্ধ রয়েছে। সেখানে সেনাবাহিনীর নেতৃত্বে যৌথ বাহিনী তল্লাশি চালাচ্ছে। ওই এলাকায় সেনাবাহিনীর সাথে কেএনএফ’র মধ্যে ছয় ঘন্টাব্যাপী সংঘর্ষ চলে বলে জানা যায়। ঘটনার পর সেখান থেকে কেএনএফ এর পোশাক পরা দুজনের লাশ উদ্ধার করা হয়। ওই এলাকা তল্লাশি করে আটক করা হয় আরো দুজন কেএনএফ সদস্যকে।

নিরাপত্তা বাহিনী ও পুলিশ জানিয়েছে, রাত বারোটার পর থেকে থানচির লিকরি সড়কের বাকলাই এলাকার দুর্গম পাহাড়ে সেনাবাহিনীর নেতৃত্বে যৌথ বাহিনী অভিযান চালায়। যৌথবাহিনীর উপস্থিতি টের পেয়ে কেএনএফ সন্ত্রাসী অতর্কিত গুলি করতে থাক। এসময় যৌথবাহিনীও পাল্টা গুলি চালায়। প্রায় ৬ ঘন্টাব্যাপী সংঘর্ষের পর দুজনের গুলিবিদ্ধ লাশ উদ্ধার করা হয়। তল্লাশি চালিয়ে আটক সদস্যদের বান্দরবান জেলা সদরে নিয়ে আসা হচ্ছে বলে জানা গেছে।

উল্লেখ্য, ২ এপ্রিল রাত সাড়ে আটটার দিকে প্রথমে বান্দরবানের রুমার সোনালী ব্যাংক শাখায় হানা দেন অস্ত্রধারীরা। ওই হামলায় কুকি–চিন ন্যাশনাল ফ্রন্টের শতাধিক সদস্য অংশ নেন বলে ধারণা করা হচ্ছে। এ সময় তাঁরা ব্যাংকের ভল্ট ভেঙে টাকা লুট করার চেষ্টা চালান। টাকা নিতে না পেরে তাঁরা পুলিশ ও আনসার সদস্যদের কাছ থেকে ১৪টি অস্ত্র ও ৪১৫টি গুলি লুট করেন। পরে ব্যবস্থাপক নেজাম উদ্দীনকে অপহরণ করে নিয়ে যান। ৪৮ ঘণ্টা পর তাঁকে রুমা বাজার এলাকা থেকে উদ্ধার করে র‍্যাব।

এসব ঘটনায় রুমা ও থানচি থানায় ৯টি মামলা হয়েছে। কুকি–চিনের সদস্যসহ এ পর্যন্ত গ্রেপ্তার করা হয়েছে ৬৬ জনকে। এর মধ্যে ৫৩ জনকে রিমান্ডে নিয়েছে পুলিশ।

উল্লেখ্য, গত ২ ও ৩ এপ্রিল কেএনএফ বান্দরবানের রুমা ও থানচি উপজেলার সোনালী ও কৃষি ব্যাংকের তিনটি শাখায় হামলা চালিয়ে অস্ত্র, গুলি ও টাকা লুট করে নিয়ে যায়। এ ঘটনার পর সেখানে সেনাবাহিনীর নেতৃত্বে যৌথ বাহিনী অভিযান চালাচ্ছে। এ পর্যন্ত অভিযানে ৮০ জন কেএনএফ সদস্য ও তাদের সহযোগীকে আটক করা হয়েছে।

  • অন্যান্য খবর জানতে এখানে ক্লিক করুন।
  • ফেসবুকে আমাদের ফলো দিয়ে সর্বশেষ সংবাদের সাথে থাকুন।