জান্তার বিমান হামলায় মিয়ানমারের শান প্রদেশে বহু হতাহত - Southeast Asia Journal

জান্তার বিমান হামলায় মিয়ানমারের শান প্রদেশে বহু হতাহত

“এখান থেকে শেয়ার করতে পারেন”

Loading

নিউজ ডেস্ক

মিয়ানমারের উত্তরাঞ্চলের শান প্রদেশে বিমান হামলা চালিয়েছে জান্তা বাহিনী। এতে বেশ কয়েকজন হতাহত হয়েছেন। হামলায়, লাসিওর মূল সেতু ধ্বংস হয়ে যাওয়ায় শহরটির সঙ্গে আশপাশের এলাকার যোগাযোগ বিচ্ছিন্ন হয়ে গেছে।

বৃহস্পতিবার (৪ জানুয়ারি) এ খবর জানিয়েছে মিয়ানমার-ভিত্তিক সংবাদমাধ্যম ইরাবতি।

মিয়ানমারের বিভিন্ন অঞ্চলে বিদ্রোহী গোষ্ঠীগুলোর জোট থ্রি ব্রাদারহুড অ্যালায়েন্সের সঙ্গে জান্তা সেনাদের ব্যাপক লড়াই চলছে। গেল অক্টোবর থেকে জোরদার হওয়ায় এই লড়াইয়ে এরইমধ্যে বিভিন্ন শহরের নিয়ন্ত্রণ নিয়েছে জোটটি। তবে শহরের নিয়ন্ত্রণ ফিরে পেতে মরিয়া জান্তা বাহিনী পাল্টা বিমান হামলা চালিয়ে যাচ্ছে।

সংবাদমাধ্যম ইরাবতি জানিয়েছে, শান প্রদেশের প্রধান শহর লাসিওর বেশ কয়েকটি গ্রামে বিমান হামলা চালায় জান্তা সেনারা। এতে বেশ কয়েকজন বেসামরিক নাগরিক হতাহত হন বলেও জানিয়েছে সংবাদমাধ্যমটি।

পাল্টা হামলা চালিয়ে যাচ্ছে থ্রি ব্রাদারহুড অ্যালায়েন্সও। খা মং ওয়া এলাকায় হামলা চালিয়ে জান্তা বাহিনীর কয়েকটি সেনা চৌকি দখল করে নিয়েছে গোষ্ঠীটি। চলতি সপ্তাহের মধ্যেই দেশটির চিন রাজ্যের দক্ষিণাঞ্চল থেকে জান্তাবাহিনীকে বিতাড়িত করার ঘোষণা দিয়েছে বিদ্রোহী গোষ্ঠী আরাকান আর্মি। এক বিবৃতিতে গোষ্ঠীটি জানিয়েছে, এখনো বেশ কয়েকটি ছোট ও বড় ঘাঁটির জান্তা সেনারা আত্মসমর্পণ করেনি।

তবে শিগগিরই তাদের এসব ঘাঁটি থেকে নির্মূল করা হবে বলে ঘোষণা দিয়েছে আরাকান আর্মি।

এর আগে ডিসেম্বরের মাঝামাঝি সময়ে আরাকান আর্মি এক বিবৃতিতে জানিয়েছিল, রাখাইন রাজ্যের ১৭টি টাউনশিপের মধ্যে ১৫টিতেই তারা নিজেদের নিয়ন্ত্রণ প্রতিষ্ঠা করেছে এবং এ সময় তারা জান্তা বাহিনীর কাছ থেকে ১৪২টি সেনা ঘাঁটি দখল করে নিয়েছে।

এদিকে সেনা ও বিদ্রোহী গোষ্ঠীদের মধ্যকার সংঘর্ষে চীনা নাগরিক হতাহত হওয়ার তীব্র নিন্দা জানিয়েছে বেইজিং। বৃহস্পতিবার এক সংবাদ সম্মেলনে চীনা পররাষ্ট্র মন্ত্রণালয় জানায়, মিয়ানমার সীমান্তে চলমান সংঘাতের ঘটনায় চরম অসন্তুষ্ট শি প্রশাসন। নিজেদের নাগরিকদের নিরাপত্তা নিশ্চিতে যে কোনো পদক্ষেপ নেয়া হবে বলেও জানিয়েছে বেইজিং।