মিয়ানমারে জরুরি অবস্থার মেয়াদ আবারও বাড়লো - Southeast Asia Journal

মিয়ানমারে জরুরি অবস্থার মেয়াদ আবারও বাড়লো

মিয়ানমারে জরুরি অবস্থার মেয়াদ আবারও বাড়লো
“এখান থেকে শেয়ার করতে পারেন”

Loading

নিউজ ডেস্ক

বিদ্রোহীদের সঙ্গে তীব্র লড়াইয়ের মধ্যেই মিয়ানমারে জরুরি অবস্থার মেয়াদ বেড়েছে। সামরিক অভ্যুত্থানের তিন বছর পূর্তির আগেরদিন জরুরি অবস্থার মেয়াদ নতুন করে আরও ছয় মাস বাড়ানোর ঘোষণা দেন জান্তা প্রধান মিন অং হ্লাইং। দেশের অভ্যন্তরে গণতন্ত্রপন্থি বিদ্রোহীদের তৎপরতা মোকাবিলায় কঠিন চ্যালেঞ্জের মুখে থাকা জান্তা সরকারের শাসনক্ষমতা পরীক্ষার মুখে পড়ার এই সময়ে এমন ঘোষণা দেয়া হলো।

বুধবার (৩১ জানুয়ারি) এক প্রতিবেদনে এ তথ্য জানিয়েছে আল জাজিরা।

২০২১ সালের ১ ফেব্রুয়ারি ভোরে এক সেনা অভ্যুত্থানে শান্তিতে নোবেলজয়ী অং সান সু চি নেতৃত্বাধীন নির্বাচিত সরকারকে হটিয়ে ক্ষমতা দখল করেন মিন অং হ্লাইং। এরপর তিন বছর পেরিয়ে গেছে। দীর্ঘ এই সময়ের মধ্যে এখন সবচেয়ে বেশি বেকায়দায় রয়েছেন জান্তাপ্রধান।

ক্ষমতা দখলের পরপরই ব্যাপক জন-অসন্তোষের মুখে পড়ে জান্তা সরকার। তবে মিন অং হ্লাই কঠোর হাতে তা দমন করেন। বিরোধীদের দমনে জান্তার অভিযানে কয়েকশ মানুষ নিহত হয়েছেন। তবে গত অক্টোবরে বিভিন্ন রাজ্যের সশস্ত্র বিদ্রোহী গোষ্ঠীগুলো জোট বেঁধে জান্তা বাহিনীর বিরুদ্ধে অভিযান শুরুর পর একের পর এক এলাকার নিয়ন্ত্রণ হারানোয় হ্লাইংয়ের নেতৃত্ব নিয়ে প্রশ্ন উঠেছে।

  • আন্তর্জাতিক অন্যান্য খবর জানতে এখানে ক্লিক করুন।
  • ফেসবুকে আমাদের ফলো দিয়ে সর্বশেষ সংবাদের সাথে থাকুন।

জাতিগত বিদ্রোহী গোষ্ঠীগুলো গত তিন মাসে জান্তা বাহিনীকে হটিয়ে মিয়ানমারের বিস্তীর্ণ এলাকার নিয়ন্ত্রণ নিয়েছে। এই সময়ের মধ্যে বিদ্রোহীদের কাছে অন্তত ৩৫টি শহরের নিয়ন্ত্রণ হারিয়েছে জান্তা বাহিনী। বেইজিংয়ের মধ্যস্থতায় চীন সীমান্তে সংঘর্ষ বন্ধ হলেও দেশের অন্য অংশে বিদ্রোহীদের সঙ্গে জান্তা বাহিনীর তুমুল লড়াই চলছে। প্রায় প্রতিদিনই বিদ্রোহীরা বিভিন্ন অঞ্চলে নিয়ন্ত্রণ প্রতিষ্ঠা করছে।

বিদ্রোহী গোষ্ঠীগুলোর সঙ্গে এক হয়ে সশস্ত্র লড়াই চালিয়ে যাচ্ছে সু চির দলের নির্বাচিত সদস্যদের নিয়ে গঠিত জাতীয় ঐকমত্যের সরকার-এন.ইউ.জি। বুধবার এক বিবৃতিতে এনইউজি জানায়, ছয় শর্তে সামরিক জান্তার সঙ্গে আলোচনায় বসতে রাজি তারা। এরমধ্যে রয়েছে সশস্ত্র বাহিনীকে বেসামরিক সরকারের নিয়ন্ত্রণে আনা ও রাজনীতিতে সামরিক বাহিনীর হস্তক্ষেপ বন্ধ করা।

এরমধ্যেই দেশটিতে জারি থাকা জরুরি অবস্থার মেয়াদ আরও ছয় মাস বাড়িয়েছে জান্তা সরকার। সামরিক অভ্যুত্থানের তিনবছর পূর্তির আগ দিয়ে জরুরি অবস্থার মেয়াদ নতুন করে বাড়ানো হলো।

এক বিবৃতিতে সামরিক বাহিনী বলেছে, মিয়ানমারের অস্থায়ী প্রেসিডেন্ট মিন্ট সোয়ে জরুরি অবস্থার মেয়াদ বাড়ানোর ঘোষণা দিয়েছেন … যেহেতু পরিস্থিতি স্বাভাবিক নয় এবং সন্ত্রাসীদের বিরুদ্ধে লড়াইয চালিয়ে যাওয়ার জন্য এ সিদ্ধান্ত নেয়া হয়েছে।

এদিকে, মিয়ানমারে আবারও নিষেধাজ্ঞা দিয়েছে যুক্তরাষ্ট্র। সামরিক অভ্যুত্থানের তিন বছর পূর্তি উপলক্ষে বুধবার দেশটির দুই প্রতিষ্ঠানের ওপর এই নিষেধাজ্ঞা জারি করা হয়। সামরিক বাহিনীর জন্য দেশীয় অস্ত্র উৎপাদনে সহায়তার অভিযোগে ওই দুই প্রতিষ্ঠানের ওপর নিষেধাজ্ঞা আরোপ করা হয়।