জেএসএস পাহাড়ে সাম্প্রদায়িক কোন্দল জিইয়ে রাখতে চায়- কেএনএফ - Southeast Asia Journal

জেএসএস পাহাড়ে সাম্প্রদায়িক কোন্দল জিইয়ে রাখতে চায়- কেএনএফ

জেএসএস পাহাড়ে সাম্প্রদায়িক কোন্দল জিইয়ে রাখতে চায়- কেএনএফ

প্রশাসনের কাছে অভিযোগ জানায় পর্যটকরা

“এখান থেকে শেয়ার করতে পারেন”

Loading

নিউজ ডেস্ক

সন্তু লারমার নেতৃত্বাধীন পাহাড়ের আঞ্চলিক দল পার্বত্য চট্টগ্রাম জনসংহতি সমিতি-জেএসএস পাহাড়ে সাম্প্রদায়িক কোন্দল জিইয়ে রাখতে চায় জানিয়ে কুকি-চিন ন্যাশনাল ফ্রন্ট- কেএনএফ জানিয়েছে কেএনএফ এবং বাংলাদেশ সরকারের মধ্যকার শান্তি প্রতিষ্ঠার উদ্দেশ্যে উভয়পক্ষই অবিরামভাবে কাজ করে যাচ্ছে। মূলতঃ উক্ত ঘটনাটিকে কেন্দ্র করে কেএনএফকে সরকার এবং জনসাধারণের কাছে নেতিবাচকভাবে উপস্থাপনের উদ্দেশ্যে জেএসএস সন্ত্রাসী বাহিনীদের অপচেষ্টা মাত্র। তারা কখনও চায় না পাহাড়ে শান্তি প্রতিষ্ঠিত হোক, চায় না পাহাড়ের মানুষ নিরাপদে স্বাভাবিক জীবন-যাপন করুক। তারা চায় পাহাড়ে সাম্প্রদায়িক কোন্দল সৃষ্টি করা আর তা দীর্ঘ বৎসর জিইঁয়ে রাখা এবং সর্বদা ভ্রাতৃঘাতি সংঘাত সৃষ্টি করা।

মঙ্গলবার (২৭ ফেব্রুয়ারি) গণমাধ্যমে দেওয়া এক বিবৃতিতে কেএনএফের সামরিক শাখা কুকি-চিন ন্যাশনাল আর্মির (কেএনএ) ইনফরমেশন অ্যান্ড ইনটেলিজেন্স উইং এর ক্যাপ্টেইন ফ্লেমিং স্বাক্ষরিত বিবৃতিতে এ কথা জানানো হয়।

বিবৃতিতে কেএনএ জানায়, গতকাল থেকে বিভিন্ন গণমাধ্যমে প্রচারিত সংবাদে তারা জানতে পেরেছে যে গতকাল থানচি উপজেলায় দুষ্কৃতিকারীদের কর্তৃক পর্যটকদের ছিনতাইয়ের ঘটনার সাথে কেএনএফ /কেএনএ নাকি জড়িত তথা ঘটনাটি কেএনএফই ঘটিয়েছিল। এ প্রসঙ্গে আমরা দ্বৈর্থহীনকণ্ঠে বলতে চাই, উক্ত সন্ত্রাসী কর্মকাণ্ডের সাথে কেএনএফ বা তার সশস্ত্র শাখা কেএনএ কোনভাবেই সম্পৃক্ততা নাই। আমরা আমাদের কেএনএফ বিবৃতিতে গণমাধ্যমের বরাবরে বলে আসছি সে সব এলাকায় কেএনএ ক্যাডারদের কোন আনাগোনা ছিল না। ওই অনভিপ্রেত ঘটনার সাথে কেএনএফ-এর প্রত্যক্ষ বা পরোক্ষভাবে কোন সম্পর্কযুক্ততা নেই। তাছাড়া, আমরা আমাদের ক্যাডারদের গেঞ্জিতে কোন ধরনের কেএনএফ লোগো ব্যবহারের অনুমতি প্রদান করা হয়নি বা মোটেই অনুমোদিত নয়। এ ধরনের ভ্রান্ত ধারণাপ্রসূত ও সন্দেহজনকভাবে কেএনএফ-এর সশস্ত্র শাখাকে দোষারোপ করা থেকে সতর্কতার সহিত সকল গণমাধ্যমকে নিরপেক্ষভাবে সংবাদ পরিবেশনের জন্য বিনীত অনুরোধ জানাচ্ছি।

বিবৃতিতে আরো জানানো হয়, জনগণের জ্ঞাতার্থে উল্লেযোগ্য যে, বাংলাদেশ সরকারের সাথে শান্তির আলোচনার মাধ্যমে কেএনএফ-এর কার্যক্রম সবসময় শান্তির উপায়ে, জনগণের স্বার্থ চিন্তা করে এবং পাহাড়ে বিদ্যমান অশান্ত পরিস্থিতি স্বাভাবিক রাখার জন্যে আপ্রাণ চেষ্টা চালিয়ে যাচ্ছে। তাই, পাহাড়ে শান্তি প্রতিষ্ঠার উদ্যোগকে নস্যাৎ করবার অপচেষ্টা এবং কেএনএফ এর বিরুদ্ধে উঠে পড়া লাগা সকল যড়যন্ত্রের বিরুদ্ধে কেএনএফ সব সময় সোচ্চার।

  • পার্বত্য চট্টগ্রামের অন্যান্য খবর জানতে এখানে ক্লিক করুন।
  • ফেসবুকে আমাদের ফলো দিয়ে সর্বশেষ সংবাদের সাথে থাকুন।