ইরানের সঙ্গে চুক্তির জেরে ভারতকে নিষেধাজ্ঞার হুমকি যুক্তরাষ্ট্রের

ইরানের সঙ্গে চুক্তির জেরে ভারতকে নিষেধাজ্ঞার হুমকি যুক্তরাষ্ট্রের

ইরানের সঙ্গে চুক্তির জেরে ভারতকে নিষেধাজ্ঞার হুমকি যুক্তরাষ্ট্রের
“এখান থেকে শেয়ার করতে পারেন”

Loading

নিউজ ডেস্ক

দশ বছরের জন্য তেহরানের চাবাহার বন্দর পরিচালনা করতে ইরানের সঙ্গে চুক্তি স্বাক্ষরের কয়েক ঘণ্টার মধ্যেই ভারতকে নিষেধাজ্ঞার কড়া হুঁশিয়ারি দিয়েছে যুক্তরাষ্ট্র।

ওয়াশিংটনের পক্ষ থেকে বলা হয়েছে, ইরানের সঙ্গে বাণিজ্য কার্যক্রম পরিচালনার আগে যেকোনো দেশেরই সতর্ক হওয়া উচিৎ। কারণ এমন ঘটনা ওইসব দেশের ওপর যুক্তরাষ্ট্রের নিষেধাজ্ঞার পথকে প্রশস্ত করে।

মঙ্গলবার এক সংবাদ সম্মেলনে যুক্তরাষ্ট্রের পররাষ্ট্র দপ্তরের উপপ্রধান মুখপাত্র বেদান্ত প্যাটেল বলেন, ‘ভারতের পররাষ্ট্র নীতি ও ইরানের সঙ্গে তাদের দ্বিপাক্ষিক সম্পর্কের প্রতি যুক্তরাষ্ট্র যথেষ্ট শ্রদ্ধাশীল।

‘তবে ইরানের ওপর যুক্তরাষ্ট্রের নিষেধাজ্ঞা এখনও বহাল রয়েছে। ফলে ইরানের সঙ্গে বাণিজ্যচুক্তি করলে এ বিষয়ে কাউকে ছাড় দেয়া হবে না।’

ওয়াশিংটনের এ হুঁশিয়ারির পর ভারতের পক্ষ থেকে এখনও কোনো মন্তব্য পাওয়া যায়নি।

পাকিস্তানের সঙ্গে সীমান্তবর্তী ও কৌশলগতভাবে গুরুত্বপূর্ণ ইরানের চাবাহার বন্দরের উন্নয়নকাজের জন্য ২০১৬ সালে দেশটির সঙ্গে একটি চুক্তিতে সম্মত হয় ভারত। বন্দরটির উন্নয়ন ও পরিচালনার জন্য সোমবার ইরানের সঙ্গে হওয়া চুক্তিটি আরও ১০ বছরের জন্য নবায়ন করেছে দিল্লি।

ভারতের নৌপরিবহন মন্ত্রী এই চুক্তিকে ভারত-ইরান সম্পর্কের একটি ‘ঐতিহাসিক মুহূর্ত’ বলে অভিহিত করেছেন।

তবে ভারতের এই পদক্ষেপ ভালোভাবে নেয়নি যুক্তরাষ্ট্র। গত তিন বছরে ইরান সম্পর্কিত বিভিন্ন সংস্থার ওপর ৬০০টিরও বেশি নিষেধাজ্ঞা আরোপ করেছে দেশটি।

বিবিসির খবরে বলা হয়েছে, ২০১৮ সালের শেষের দিকে প্রথম চাবাহার বন্দর পরিচালনার দায়িত্ব নেয় ভারত। পাকিস্তানকে এড়িয়ে আফগানিস্তানসহ মধ্য এশিয়ার অন্যান্য দেশে পণ্য পরিবহন ও সরবরাহে বন্দরটি ভারতের জন্য একটি ট্রানজিট রুট হিসেবে কাজ করে।

সোমবার ভারতের নৌপরিবহন মন্ত্রণালয় জানিয়েছে, বন্দরটির উন্নয়নের জন্য ভারতের ইন্ডিয়ান পোর্টস গ্লোবাল লিমিটেড (আইপিজিএল) ও ইরানের পোর্ট অ্যান্ড মেরিটাইম অর্গানাইজেশন দীর্ঘমেয়াদী একটি চুক্তি স্বাক্ষর করেছে।

ইরানের নগর ও সড়ক উন্নয়নমন্ত্রী মেহেরদাদ বাজরপাশ বলেছেন, চুক্তি মোতাবেক আইপিজিএল এই প্রকল্পে ১২০ মিলিয়ন ডলার প্রাথমিক বিনিয়োগের পাশাপাশি আরও ২৫০ মিলিয়ন ডলার অতিরিক্ত বিনিয়োগ করবে।

এই চুক্তিটি ইরানের সঙ্গে আরও বড় বিনিয়োগের পথ প্রশস্ত করবে বলে জানিয়েছেন ভারতের পররাষ্ট্রমন্ত্রী এস জয়শঙ্কর।

গত মাসে পাকিস্তানকেও একই রকমের নিষেধাজ্ঞার হুঁশিয়ারি দেয় যুক্তরাষ্ট্র।

২২ এপ্রিল ইসলামাবাদ সফরে পাকিস্তানের সঙ্গে বাণিজ্য, জ্বালানি, যোগাযোগসহ নানা বিষয়ে বিষয়ে আলোচনা ও সমঝোতা স্বাক্ষর করেন ইরানের প্রেসিডেন্ট ইব্রাহিম রাইসি।

রাইসির পাকিস্তান সফর ও বিভিন্ন ক্ষেত্রে সমঝোতা স্বাক্ষর নিয়েও বিরূপ প্রতিক্রিয়া দেখায় ওয়াশিংটন।

  • অন্যান্য খবর জানতে এখানে ক্লিক করুন।
  • ফেসবুকে আমাদের ফলো দিয়ে সর্বশেষ সংবাদের সাথে থাকুন।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *