রোহিঙ্গাদের ৭ মিলিয়ন ডলারের সহায়তা দেবে কারিতাস

রোহিঙ্গাদের ৭ মিলিয়ন ডলারের সহায়তা দেবে কারিতাস

রোহিঙ্গাদের ৭ মিলিয়ন ডলারের সহায়তা দেবে কারিতাস
“এখান থেকে শেয়ার করতে পারেন”

Loading

নিউজ ডেস্ক

রোহিঙ্গাদের অর্থায়নে সাড়াদান কার্যক্রম অনেকটাই কমে গেছে। মাসে রোহিঙ্গাপ্রতি খাদ্য সহায়তার হার কমে ১০ ডলারে নেমে এসেছে। এরই পরিপ্রেক্ষিতে আগের মতো প্রয়োজনীয় তহবিল নিয়ে আমাদের তাদের পাশে থাকা প্রয়োজন। গত ২০১৭-২৩ পর্যন্ত কারিতাস ইন্টারন্যাশনালিজ কক্সবাজার ও ভাসানচরে আশ্রয় নেওয়া রোহিঙ্গা সদস্যদের জন্য জরুরি সহায়তা হিসাবে ৪৫ মিলিয়ন ডলারের কার্যক্রম পরিচালনা করেছে। এ সময়ে প্রায় ১ লাখের মতো ব্যক্তিকে সহায়তা দেওয়া হয়েছে। চলতি বছরে রোহিঙ্গা ও হোস্ট কমিউনিটির জন্যেও ৭ মিলিয়ন ডলার সহায়তা দেওয়ার পরিকল্পনা নিয়ে কাজ করছে।

বৃহস্পতিবার ঢাকা রিপোর্টার্স ইউনিটির (ডিআরইউ) নসরুল হামিদ মিলনায়তনে অনুষ্ঠিত এক সংবাদ সম্মেলনে এসব কথা বলেন কারিতাস ইন্টারন্যাশনালিজের সেক্রেটারি জেনারেল অ্যালিস্টর ডাটন।

এসময় আরও উপস্থিত ছিলেন কারিতাস এশিয়া প্রেসিডেন্ট ড. বেনেডিক্ট আলো ডি’রোজারিও, কারিতাস বাংলাদেশ প্রেসিডেন্ট বিশপ জেমস্ রমেন বৈরাগী, কারিতাস ইন্টারন্যাশনালিজ সেক্রেটারি জেনারেল অ্যালিস্টার ডাটন, কারিতাস বাংলাদেশ নির্বাহী পরিচালক সেবাস্টিয়ান রোজারিও, কারিতাস বাংলাদেশ পরিচালক-অর্থ ও প্রশাসন রিমি সুবাস দাশ, কারিতাস বাংলাদেশ পরিচালক-কর্মসূচি দাউদ জীবন দাস।

তিনি বলেন, গত ৭ বছর ধরে বাংলাদেশ সরকার রোহিঙ্গা শরণার্থীদের যেভাবে সমর্থন দিয়েছে, তাতে আমি গভীরভাবে অনুপ্রাণিত। বিশ্বের নজর যখন অন্যদিকে ধাবিত হয়েছে, তখনও রোহিঙ্গারা এসব ভুলে যাওয়া শিবিরে টিকে থাকার সংগ্রাম চালিয়ে যাচ্ছে। কিন্তু বাংলাদেশ সরকার একাই তাদেরকে সহযোগিতা করবে এটা আশা করা উচিত নয়। অন্য দেশগুলোকেও আগের মতো প্রয়োজনীয় তহবিল নিয়ে তাদের পাশে থাকা প্রয়োজন।

অ্যালিস্টার ডাটন বলেন, রোহিঙ্গা ক্যাম্পে গত ছয় বছরে ২ লাখেরও বেশি শিশুর জন্ম হয়েছে। এই শিশুরা কখনই তাদের নিজ দেশ দেখেনি ও তাদের কোনো জাতীয়তা নেই। তারা রাষ্ট্রহীন। এ বিষয়ে নতুন করে আন্তর্জাতিক মাধ্যমগুলোকে নজর দিতে হবে। রোহিঙ্গাদের নিরাপদ ও মর্যাদাপূর্ণ প্রত্যাবর্তনসহ অধিকার পুনরুদ্ধারের জন্য মিয়ানমারের ওপর চাপের পাশাপাশি এই অঞ্চল এবং এর বাইরের দেশগুলোকে সমানভাবে দায়িত্ব নিতে হবে। রোহিঙ্গাদের জন্য শক্তিশালী মানবিক অবস্থান এবং চলমান সহায়তার জন্য বাংলাদেশ সরকারকে ধন্যবাদ এবং বিশ্ববাসীকে তাদের জন্য আরো সহায়তার আহ্বান জানান অ্যালিস্টার ডাটন।

অ্যালিস্টার ডাটন কক্সবাজারে শরণার্থী ত্রাণ ও প্রত্যাবাসন বিষয়ক অতিরিক্ত কমিশনার শামসুদ দৌজা নয়ন, ইন্টার সেক্টর কোঅর্ডিনেশন গ্রুপের প্রিন্সিপাল কোঅর্ডিনেটর, জাতিসংঘের বিভিন্ন সংস্থার প্রতিনিধি ও এনজিও প্ল্যাটফর্ম প্রতিনিধিদের সাথে এবং কার্ডিনাল মহোদয় ও ভ্যাটিকানের রাষ্ট্রদূতের সাথে সাক্ষাৎ করেন। তিনি বর্তমান পরিস্থিতি এবং চ্যালেঞ্জ বিষয়ে ক্যাম্পের কর্মী এবং জোরপূর্বক বাস্তুচ্যুত মিয়ানমারের নাগরিকদের (এফডিএমএন) সাথে কথা বলেন।

  • অন্যান্য খবর জানতে এখানে ক্লিক করুন।
  • ফেসবুকে আমাদের ফলো দিয়ে সর্বশেষ সংবাদের সাথে থাকুন।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *