মিয়ানমারে সংঘাতঃ টেকনাফ সীমান্তে ফের বিস্ফোরণের বিকট শব্দ

মিয়ানমারে সংঘাতঃ টেকনাফ সীমান্তে ফের বিস্ফোরণের বিকট শব্দ

মিয়ানমারে সংঘাতঃ টেকনাফ সীমান্তে ফের বিস্ফোরণের বিকট শব্দ
“এখান থেকে শেয়ার করতে পারেন”

Loading

নিউজ ডেস্ক

মিয়ানমারের রাখাইন রাজ্যে চলমান সংঘাতের জেরে টানা পাঁচ দিন বন্ধের পর আবার বিস্ফোরণের শব্দে কাঁপল কক্সবাজারের টেকনাফ। রাখাইনের মংডু টাউনশিপের আশপাশের গ্রাম থেকে বুধবার (৩ জুলাই) সকাল সাড়ে ১০টা থেকে থেমে থেমে আবারও বিস্ফোরণের বিকট শব্দ শুনতে পান টেকনাফের বাসিন্দারা।

নাফ নদীর তীরে টেকনাফ পৌরসভা, সদর, সাবরাং ইউনিয়নের বাসিন্দারা বিকট বিস্ফোরণের শব্দ শুনতে পান।

এর আগে শুক্রবার (২৮ জুন) দুপুর ১টার পর থেকে মঙ্গলবার (২ জুলাই) মধ্যরাত পর্যন্ত টানা পাঁচদিন ধরে বিস্ফোরণের কোনো শব্দ শোনা যায়নি।

ঘটনার সত্যতা নিশ্চিত করে টেকনাফ পৌরসভার প্যানেল মেয়র মুজিবুর রহমান ও সাবরাং ইউপি চেয়ারম্যান নুর হোসেন বলেন, টানা পাঁচদিন সীমান্তে মানুষ শান্তিতে ছিলেন। ওইসময় কোনো ধরনের বিকট শব্দ পাওয়া যায়নি। বুধবার থেকে ক্রমাগত মর্টার শেল ও ভারী গোলার শব্দ শোনা যাচ্ছে।

সাবরাং ইউনিয়ন পরিষদের (ইউপি) চেয়ারম্যান নুর হোসেন বলেন, শুক্রবার দুপুরের পর থেকে মঙ্গলবার পর্যন্ত টানা পাঁচদিন শান্তিতে ছিলেন সীমান্তের লোকজন। এ সময় তারা কোনো ধরনের বিকট বিস্ফোরণের শব্দ পায়নি। তবে বুধবার সকাল থেকে হঠাৎ বিকট শব্দে বাড়িঘর কেঁপে ওঠে। প্রথমে সবাই মনে করেছিলেন ভূমিকম্প হচ্ছে। যেভাবে বাড়িঘর কেঁপেছে, যেকোনো সময় ধসে পড়তে পারে।

স্থানীয় জনপ্রতিনিধি ও সীমান্ত এলাকার লোকজনের মতে, মিয়ানমারের মংডু টাউনশিপের যে এলাকায় বর্তমানে হামলা হচ্ছে, সেখানে অধিকাংশ রোহিঙ্গা নাগরিকের বসবাস। মংডু টাউনশিপের আশপাশের এলাকায় নতুন করে জান্তা বাহিনী ও বিদ্রোহীদের মধ্যে সংঘর্ষের তীব্রতা বেড়ে যাওয়ায় এমন বিস্ফোরণের শব্দ শোনা যাচ্ছে।

তবে সম্ভাব্য রোহিঙ্গা অনুপ্রবেশ ঠেকাতে সতর্ক রয়েছে কোস্টগার্ড ও বিজিবি। নতুন করে আর কোনো রোহিঙ্গাকে ঠাঁই দেওয়া হবে না বলে জানিয়ে দিয়েছে বাংলাদেশ।

টেকনাফ উপজেলার নির্বাহী কর্মকর্তা (ইউএনও) মো. আদনান চৌধুরী বলেন, মিয়ানমার থেকে রোহিঙ্গা অনুপ্রবেশ ঠেকাতে বাংলাদেশ সীমান্তে বিজিবি ও কোস্টগার্ডের টহল জোরদার করা হয়েছে।

  • অন্যান্য খবর জানতে এখানে ক্লিক করুন।
  • ফেসবুকে আমাদের ফলো দিয়ে সর্বশেষ সংবাদের সাথে থাকুন।