সীমান্তে নিখোঁজ তরুণের লাশ ভারতে, দাবি পরিবারের - Southeast Asia Journal

সীমান্তে নিখোঁজ তরুণের লাশ ভারতে, দাবি পরিবারের

“এখান থেকে শেয়ার করতে পারেন”

Loading

নিউজ ডেস্ক

রাজশাহীর গোদাগাড়ীর এক তরুণ (১৮) ১৭ সেপ্টেম্বর অভিমান করে বাড়ি থেকে বের হয়ে যান। এরপর আর বাড়িতে ফেরেননি। ১৯ সেপ্টেম্বর তাঁর পরিবারের সদস্যরা খবর পান, তাঁদের ছেলের লাশ ভারতে আছে।

তবে বর্ডার গার্ড বাংলাদেশ (বিজিবি) বলছে, পতাকা বৈঠকে ভারতীয় সীমান্তরক্ষী বাহিনী (বিএসএফ) তাদের জানিয়েছে, একটি লাশ পাওয়া গেছে। সেটি কঙ্কাল হয়ে গেছে। ময়নাতদন্তের জন্য মর্গে পাঠানো হয়েছে।

নিখোঁজ তরুণের নাম আবদুর রহিম মাসুদ (১৮)। তিনি রাজশাহীর গোদাগাড়ী উপজেলার চর আষাড়িয়াদহ ইউনিয়নের দিয়াড় মানিকচক কামারপাড়া গ্রামের বাবলু রহমানের ছেলে।

রহিম মাসুদের বাবা বাবলু রহমান জানান, ১৭ সেপ্টেম্বর দুপুরে মায়ের কাছে ৫০০ টাকা চান মাসুদ। না পেয়ে বাড়ি থেকে বের হয়ে যান। সন্ধ্যার পর থেকে তাঁর মুঠোফোন বন্ধ পাওয়া যায়। অনেক খোঁজাখুঁজির পর ১৯ সেপ্টেম্বর তিনি (বাবলু রহমান) জানতে পারেন, চার তরুণ একসঙ্গে বাংলাদেশের চর মাঝারদিয়াহ দিয়ে ভারতে যাওয়ার পথে বিএসএফের হাতে ধরা পড়েছেন। বাকিরা পালিয়ে আসতে পারলেও বিএসএসফের নির্যাতনে মারা গেছেন মাসুদ। ২০ সেপ্টেম্বর সন্ধ্যায় ভারতে থাকা তাঁদের আত্মীয়রা দেশটির রানীতলা থানা–পুলিশের সঙ্গে যোগাযোগ করিয়ে দেন। হোয়াটসআপে পাঠানো পোশাকের ছবি দেখে তা তাঁদের ছেলের বলে শনাক্ত করেন তাঁরা। তবে মাসুদের সঙ্গে থাকা অন্য তিন তরুণের পরিচয় তিনি জানাতে পারেননি। তাঁরা সংশ্লিষ্ট বিজিবি ক্যাম্পসহ প্রশাসনের অনেকের সঙ্গে কথা বলেছেন। অন্তত ছেলের লাশটা যেন ফেরত পান, কবর দিতে পারেন।

রহিম মাসুদের বাবা বাবলু রহমানের সঙ্গে কথা হয়েছে জানিয়ে চর আষাড়িয়াদহ ইউনিয়ন পরিষদের (ইউপি) চেয়ারম্যান আশরাফুল ইসলাম বলেন, পোশাকের ছবি দেখে তাঁরা নিশ্চিত হয়েছেন, লাশটা মাসুদের। এ বিষয়ে তিনি বিজিবির কর্মকর্তাদের সঙ্গে কথা বলেছেন।

এ বিষয়ে বিজিবি রাজশাহী-১ ব্যাটালিয়নের অধিনায়ক লে. কর্নেল সাব্বির আহমেদ বলেন, তাঁদের কাছে ওই তরুণ এখনো নিখোঁজ। গতকাল শুক্রবার সন্ধ্যায় বিএসএফের সঙ্গে পতাকা বৈঠক হয়েছে। বিএসএফ জানিয়েছে, তারা একটা লাশ পেয়েছে। তবে সেটি কঙ্কাল হয়ে গেছে। ময়নাতদন্তের জন্য লাশটি মর্গে পাঠানো হয়েছে।