সাজেকে পাহাড় ধসে যান চলাচল বন্ধ, সেনা সহায়তায় ৮ ঘণ্টা পর যান চলাচল শুরু - Southeast Asia Journal

সাজেকে পাহাড় ধসে যান চলাচল বন্ধ, সেনা সহায়তায় ৮ ঘণ্টা পর যান চলাচল শুরু

“এখান থেকে শেয়ার করতে পারেন”

Loading

নিউজ ডেস্ক

রাঙামাটির বাঘাইছড়ি উপজেলার নন্দারামে পাহাড় ধসে সাজেকের সঙ্গে সড়ক যোগাযোগ বন্ধ হয়ে আটকা পড়েন কয়েক হাজার পর্যটক। বিষয়টি নিশ্চিত করে বাঘাইছড়ি উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা (ইউএনও) রুমনা আক্তার জানান, মঙ্গলবার দিবাগত রাতে ভারী বৃষ্টিপাতের কারণে পাহাড় ধসের ঘটনা ঘটে। খবর পেয়ে দ্রুত সড়ক পরিষ্কারের জন্য ২০-ইসিবি কাজ শুরু করে।

মেঘের রাজ্য হিসেবে পরিচিত রাঙামাটির সাজেক ভ্যালি। ছুটির দিনে পর্যটকদের পদচারণায় মুখর থাকে জায়গাটি। সনাতন ধর্মাবলম্বীদের বড় উৎসব দুর্গাপূজা উপলক্ষে সরকারি ছুটি থাকায় পর্যটকরা ছুটে আসছেন। তবে পাহাড় ধসের ঘটনায় দুই পাড়ে কয়েক হাজার পর্যটক আটকা পড়েন। এর ফলে ব্যবসায়িকভাবে ক্ষতিগ্রস্ত হওয়ার শঙ্কা করেন পর্যটন ব্যবসায়ীরা।

সাজেক কটেজ মালিক সমিতির সভাপতি সুপর্ণ দেব বর্মণ বলেন,‌ ‘আমরা সকালে বিষয়টি জানতে পেরেছি। আমাদের সাজেক এলাকায় প্রায় ছোট-বড় মিলে ২০০ গাড়ি রয়েছে, যা গতকাল এসেছিল। আজ সকালে অনেকের চলে যাওয়ারও কথা ছিল, কিন্তু গাড়ি চলাচল বন্ধ থাকায় এখন সবাই আটকে যান। আমাদের এখানে ১১২টি কটেজ রয়েছে। সব মিলে প্রায় চার হাজার পর্যটক থাকতে পারেন।’

এদিকে, পাহাড়ধসের ঘটনায় আট ঘণ্টা বন্ধ থাকার পর বাঘাইহাট-সাজেক সড়কে যান চলাচল স্বাভাবিক হয়েছে। আজ বুধবার বেলা দুইটার দিকে ওই সড়কে যান চলাচল শুরু হয়েছে বলে নিশ্চিত করেছেন সাজেক ইউনিয়ন পরিষদের (ইউপি) চেয়ারম্যান অতুলাল চাকমা।

পুলিশ ও স্থানীয় সূত্রে জানা গেছে, গতকাল রাত ১১টা থেকে ১২টার মধ্যে শুকনা নন্দারাম এলাকায় পাহাড় ধসে সড়কের ওপর পড়ে। এতে ওই সড়কে যান চলাচল বন্ধ হয়ে যায়। খবর পেয়ে আইনশৃঙ্খলা রক্ষাকারী বাহিনী, জনপ্রতিনিধি ও স্থানীয় লোকজন ঘটনাস্থলে ছুটে যান। তবে ধসে পড়া মাটির পরিমাণ বেশি হওয়ায় রাতে মাটি সরানোর কোনো ব্যবস্থা নেওয়া যায়নি। পরে আজ বেলা ১১টার দিকে সেনাবাহিনীর একটি এক্সকাভেটর (মাটি কাটার যন্ত্র) দিয়ে সড়ক থেকে মাটি সরানোর কাজ শুরু করে।

অতুলাল চাকমা বলেন, রাতে বৃষ্টি হওয়ায় নন্দারাম এলাকায় পাহড়াধসের ঘটনা ঘটেছে বলে প্রাথমিকভাবে জানা গেছে। এর পর থেকে সড়ক যোগাযোগ বন্ধ ছিল। তবে দুপুর দুইটার পর থেকে আবার যান চলাচল শুরু হয়েছে। বাঘাইহাট ও রুইলুইয়ে আটকা পড়া পর্যটকবাহী গাড়িগুলো নির্বিঘ্নে চলাচল করছে।