১০ মে’র পর মালদ্বীপে কোনো ভারতীয় সেনা থাকবে না - Southeast Asia Journal

১০ মে’র পর মালদ্বীপে কোনো ভারতীয় সেনা থাকবে না

১০ মে’র পর মালদ্বীপে কোনো ভারতীয় সেনা থাকবে না
“এখান থেকে শেয়ার করতে পারেন”

Loading

নিউজ ডেস্ক

মালদ্বীপে আগামী ১০ মের পর কোনও ভারতীয় সেনা থাকবে না। এমনকি, সাধারণ পোশাকেও নয়। সামরিক ক্ষেত্রে চীনের নিঃশর্ত সহযোগিতা চুক্তি সই হওয়ার দিনই মালদ্বীপের প্রেসিডেন্ট মহম্মদ মুইজ্জু এমন হুঁশিয়ারি দিয়েছেন।

মালদ্বীপে এখন বিমান ক্ষেত্রের দায়িত্বে রয়েছে ভারতীয় সেনা। ১০ মার্চের মধ্যে তিনটির একটি থেকে সরাতে হবে সেনা। সেই জায়গায় দায়িত্ব নেবে ভারতীয় সরকারি কর্মীদের একটি দল। সেই দলটি মালদ্বীপে পৌঁছনোর দিন কয়েকের মধ্যেই এই মন্তব্য করেছেন প্রেসিডেন্ট মুইজ্জু।

স্থানীয় সংবাদমাধ্যম সেই বক্তব্য তুলে ধরেছে। সেখানে অ্যাটলে একটি জনসভায় মুইজ্জু বলেন, ‘এই লোকজন (ভারতীয়) ফিরে যাচ্ছেন না। কেবল উর্দি ছেড়ে সাধারণ পোশাকে এসে হাজির হচ্ছেন। এই ধরনের ভাবনাচিন্তাকে প্ররোচনা দেওয়া উচিত নয়, যা আমাদের মনে সন্দেহ তৈরি করে, মিথ্যা ছড়ায়।’
সংবাদমাধ্যমের রিপোর্ট বলছে, এর পরেই মুইজ্জু বলেন, ‘১০ মের পর দেশে কোনও ভারতীয় বাহিনী থাকবে না। উর্দিতেও না, উর্দি ছাড়া অসামরিক পোশাকেও নয়। ভারতীয় বাহিনী এ দেশে কোনও ভাবেই থাকবে না। আত্মবিশ্বাসের সঙ্গে বলছি।’

২ ফেব্রুয়ারি দিল্লিতে ভারত এবং মালদ্বীপের মধ্যে একটি শীর্ষস্তরীয় বৈঠক হয়। তার পরেই মালদ্বীপের বিদেশ মন্ত্রক দাবি করে, ১০ মের মধ্যে মালদ্বীপের তিনটি বিমান ক্ষেত্র থেকে বাহিনী সরাবে ভারত। প্রথম ধাপে ১০ মার্চের মধ্যে একটি বিমানক্ষেত্র থেকে সরিয়ে নেওয়া হবে বাহিনী।

৫ ফেব্রুয়ারি সংসদেও মুইজ্জু একই দাবি করেছিলেন। মালদ্বীপের তিনটি বিমানক্ষেত্রে এখন ভারতীয় সেনাবাহিনীর ৮৮ জন সদস্য রয়েছেন। গত কয়েক বছর ধরে তারা দু’টি হেলিকপ্টার এবং একটি বিমানের মাধ্যমে জরুরিকালীন পরিষেবা দিচ্ছেন মালদ্বীপবাসীকে। অসুস্থদের আকাশপথে এক দ্বীপ থেকে অন্য দ্বীপে নিয়ে গিয়ে হাসপাতালে ভর্তি করানোর মতো কাজ তারা করে থাকেন।

এ দিকে, সামরিক ক্ষেত্রে মালদ্বীপকে নিঃশর্তে সহযোগিতা করবে চিন। দ্বিপাক্ষিক বোঝাপড়াকে আরও ‘জোরদার’ করার লক্ষ্যে সোমবারই দুই দেশেই মধ্যে চুক্তি স্বাক্ষর হয়েছে।

ক্ষমতায় এসেই ভারতকে মালদ্বীপ থেকে সেনা সরানোর আর্জি জানিয়েছিল ‘চিন-পন্থী’ মুইজ্জু সরকার। এই আবহেই এ বার সামরিক ক্ষেত্রে চিন-মালদ্বীপ আরও কাছাকাছি আসার ইঙ্গিত দিল।

কূটনৈতিক শিবিরের একাংশের অনুমান, বিগত কয়েক বছর ধরে নয়াদিল্লি যে সামরিক সহযোগিতার হাত মালদ্বীপের দিকে বাড়িয়ে দিয়েছিল, এ বার তার বিকল্প হিসাবে মহম্মদ মুইজ্জুর সরকার অগ্রাধিকার দিচ্ছে চিনকে।

  • অন্যান্য খবর জানতে এখানে ক্লিক করুন।
  • ফেসবুকে আমাদের ফলো দিয়ে সর্বশেষ সংবাদের সাথে থাকুন।