বাংলাদেশ থেকে যাওয়া ৬৯ হাজার রোহিঙ্গার পাসপোর্ট নবায়নে তাগিদ সৌদির

বাংলাদেশ থেকে যাওয়া ৬৯ হাজার রোহিঙ্গার পাসপোর্ট নবায়নে তাগিদ সৌদির

বাংলাদেশ থেকে যাওয়া ৬৯ হাজার রোহিঙ্গার পাসপোর্ট নবায়নে তাগিদ সৌদির
“এখান থেকে শেয়ার করতে পারেন”

Loading

নিউজ ডেস্ক

স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী আসাদুজ্জামান খান বলেছেন, স্বাধীনের পর বাংলাদেশি পাসপোর্ট নিয়ে সৌদি আরবে যাওয়া রোহিঙ্গা নাগরিকদের পাসপোর্ট দ্রুত সময়ের মধ্যে নবায়নের তাগিদ দিয়েছে সৌদি সরকার।

রবিবার দুপুরে রাজধানীর নিকুঞ্জে হোটেল লা মেরিডিয়ানে বাংলাদেশের স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী ও সৌদি আরবের উপস্বরাষ্ট্রমন্ত্রীর মধ্যে এ বিষয়ে দ্বিপক্ষীয় বৈঠক অনুষ্ঠিত হয়।

বৈঠক শেষে স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী বলেন, বাংলাদেশি পাসপোর্ট নিয়ে ১৯৭৪ সালের দিকে সৌদি আরবে যাওয়া ৬৯ হাজার রোহিঙ্গা জনগোষ্ঠীর পাসপোর্ট নবায়ন করবে বাংলাদেশ।

আসাদুজ্জামান খান বলেন, ‘সৌদি সরকারের সঙ্গে বাংলাদেশ সরকারের একটি চুক্তি হয়েছিল। কারণ ১৯৭৪ সালের পর ৬৯ হাজার রোহিঙ্গা বাংলাদেশ থেকে বাংলাদেশের পাসপোর্ট নিয়ে দেশটিতে যায়। নিয়ম অনুযায়ী তাদের ওই দেশে কেউ কাগজপত্র ছাড়া থাকতে পারে না। সৌদি আরবে অবস্থান করা ৬৯ হাজার রোহিঙ্গার বাংলাদেশি পাসপোর্টের নবায়ন নেই। আমাদের সঙ্গে চুক্তি হয়েছে ওই সব রোহিঙ্গাদের তারা বাংলাদেশে ফেরত পাঠাবে না। আমরা রোহিঙ্গাদের পাসপোর্ট নবায়ন করে দেব। এ বিষয়ে আমরা স্লো যাচ্ছি কেন কিংবা আমাদের কোনো অসুবিধা আছে কি না, সেটা দেখার জন্য তারা এসেছিলেন। এ ছাড়াও সৌদি আরবের প্রতিনিধিদলের সঙ্গে আমাদের উভয় দেশের সুবিধা অসুবিধা নিয়ে আলাপ হয়েছে।’

৬৯ হাজার রোহিঙ্গার দায়িত্ব কোন দেশ নেবে—এমন প্রশ্নের জবাবে মন্ত্রী বলেন, ‘সৌদি আরব কিন্তু ফেরত পাঠাবে না কাউকে। আবার সৌদি সরকার রোহিঙ্গাদের ওই দেশের নাগরিকত্বও দেবে না। তবে কীভাবে থাকবে? সেজন্য তাদের কিছু ডকুমেন্টস প্রয়োজন। সেজন্য তারা আমাদের অনুরোধ করেছিল। আমরা গত বছর সেটি স্বাক্ষর করেছিলাম। সেখানে আমাদের কোনো অসুবিধা হচ্ছে কি না, বা কোনো লু-ফলস রয়েছে কি না সেসব বিষয়ে সরাসরি কথা বলতে তারা এসেছিলেন।

আজ বিশেষ বিমানে সৌদি আরব সরকারের উপস্বরাষ্ট্রমন্ত্রীর নেতৃত্বে প্রতিনিধিদলটি বাংলাদেশে আসে। বৈঠক শেষে দুপুর ১টার পর তারা ফেরত যান।

  • অন্যান্য খবর জানতে এখানে ক্লিক করুন।
  • ফেসবুকে আমাদের ফলো দিয়ে সর্বশেষ সংবাদের সাথে থাকুন।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *